আমার বয়স ৩২ বছর, আমি ১৮ বছরের মেয়ে বিয়ে করলে বয়সের পার্থক্য ১৪ বছর হয়। এটা কি খুব বেশি হয়ে যাচ্ছে?

আস্সালামু আলাইকুম,

আসলে ইসলামে বিয়ে করার জন্য বয়সের ক্ষেত্রে কোনো বাধ্যকতা নেই! আমাদের রাসুল (সল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) যখন খাদিজা(রাঃ) কে বিয়ে করেন, সেই সময়ে মহাানবি (সাঃ) এর বয়স ছিলো ২৫ এবং খাদিজা(রাঃ)এর বয়স ছিল ৪০। তাদের মাঝে ১৫ বছর বয়সের পার্থক্য ছিলো।

এখন, আসি আপনার কথায়। দেখুন,ইসলামের মতে, বিয়ে করতে হলে ছেলেদেরকে অবশ্যই স্বাবলম্বী হতেই হয় নতুবা তার জন্য বিয়ে করা হারাম! কেননা, তাকেই যে সংসারের দায়িত্ব নিতে হয়।এখন, স্বাবলম্বী হতে গেলে কারো একটু কম আবার কারো একটু বেশি সময় লাগে!

আর,আপনার বয়স ৩২ হওয়ায় আপনি কেন ১৮ বছরের কোনো মেয়েকে বিয়ে করতে পারবেন না?বয়সের পার্থক্য ১৪ হয়েছে তো কি হয়েছে? আমি নিজে ছেলে ও মেয়ের ২০ বছরের পার্থক্য এমন বিয়ের কথা শুনেছি।

আর, হ্যাঁ, আপনার জেনে রাখা উচিৎ মেয়েদের ক্ষেত্রে একটু আগে আগেই বিয়ে হওয়া উত্তম। কেননা, ৩০+ বয়সে নারীদের প্রজনন ক্ষমতা হ্রাস পেতে শুরু করে কিন্তু ছেলেদের ক্ষেত্রে ২৬-৩৫ এই বয়সটা সবচেয়ে উত্তম বয়স বিয়ে করার। তবে ২৬ এর আগে করলেও ভালো, তবে স্বাবলম্বী হতেই হবে । কিন্তু, ৪০ এর পর থেকে তাদের ভেতর অতটাও কাজ করার ক্ষমতা থাকে না, যতটা এর আগে থাকে।

আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন।

You may also like...

Leave a Reply